নারী পুলিশ সদস্য(পিএসআই) কে কথিত প্রেমিকের ছুরিকাঘাত।

নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৬ এপ্রিল ২০২০ | ১:১৬ অপরাহ্ণ

গতকাল ০৫ এপ্রিল রোববার রাত ১১ মাদারিপুর জেলা পুলিশের এক নারী সদস্যকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গুরুতর জখম কররেছে কথিত প্রেমিক রনবির । আহত ওই নারী পুলিশ সদস্যের নাম অনিমা বাড়ৈ (২৭)। তিনি সদর মডেল থানার প্রশিক্ষণকালীন উপপরিদর্শক (পিএসআই)। তাঁর বাড়ি গোপালগঞ্জের ভাঙ্গার হাট এলাকায়। গুরুতর অবস্থায় রাতেই তাঁকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মাদারীপুর সদর থানা সূত্র জানায়,অনিমা বাড়ৈ   তিন মাস আগে মাদারিপুর সদর মডেল থানায় পিএসআই হিসেবে যোগদান করেন । থানায় দায়িত্ব পালনের আগে অনিমা রোববার সন্ধ্যায় বাসা থেকে বের হন। পরে রিকশায় করে কথিত প্রেমিক রণবীরের সঙ্গে শহরের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে বেড়ান। তিনি রাত ৮টার দিকে থানায় আসেন। রাত সাড়ে ১০টার দিকে দায়িত্ব পালন শেষে অনিমা থানা থেকে বের হন।

আরো পড়ুন

পুলিশ লাইনসে যাওয়া পথে রাত ১১টার দিকে অনিমার পথরোধ করেন রণবীর। এ সময় রণবীরের সঙ্গে অনিমার কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায় রণবীর ধারালো অস্ত্র দিয়ে অনিমাকে জখম করেন। তাঁর চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে রণবীর পালিয়ে যান। পরে গুরুতর অবস্থায় অনিমাকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

জানতে চাইলে মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) বদরুল আলম মোল্লা বলেন, ‘আমরা ধারণা করছি, রণবীরের সঙ্গে ওই নারী পিএসআইর প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। তাঁদের মধ্যে কথাকাটাকাটির এক পর্যায় রণবীর প্রথমে অনিমার গলায় ছুরি দিয়ে আঘাত করেন। এতে তাঁর শ্বাসনালী অনেকখানি কেটে যায়। তাঁর হাতেও ছুরি দিয়ে আঘাত করা হয়। শ্বাসনালিতে গুরুতর জখম থাকায় মেয়েটি এখন কথা বলতে পারছেন না। তাঁকে গুরুতর অবস্থায় জেলার সদর হাসপাতাল থেকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে রাতেই তাঁর গলায় অস্ত্রোপচার করেন চিকিৎসক।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও বলেন, ‘আমরা আহত ওই পিএসআইর সঙ্গে এখনো কথা বলতে পারিনি। শুধু তিনি রণবীরের নামটাই বলেছেন। আমরা রণবীরের নামের সূত্র ধরে ছবি ও ফোন নম্বর (সংগ্রহ) করেছি। রণবীর ঢাকায় থাকেন। তবে তাঁর বাড়ি বগুড়া জেলায়। তাঁকে ধরতে পুলিশ অভিযানে নেমেছে।

 

 

 

তথ্য: প্রথম আলো

সারাদেশ
৬ এপ্রিল ২০২০