নবজাতককে ভিক্ষুকের কাছে রেখে পালিয়ে গেলেন মা

জেলা প্রতিনিধি | ২৫ জানুয়ারি ২০২০ | ৪:১১ অপরাহ্ণ

নাড়ী ছেড়া ধনকে ভিক্ষুকের কাছে ফেলে পালিয়ে গেলেন এক হতভাগা মা। তাকে ১০ টাকা হাতে ধরিয়ে দিয়েছেন। শিশুটি সুস্থ রয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। তাকে দত্তক নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন দুই নারী। নিষ্ঠুর ওই ঘটনাটি ঘটেছে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে।

শুক্রবার (২৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যা পৌনে সাতটার দিকে এক ভিক্ষুক কিশোরগঞ্জের ভৈরব বাসস্ট্যান্ডে বসে ভিক্ষা করছিলেন। এমন সময় নবজাতক কোলে এক নারী ওই ভিক্ষুকের সামনে দাঁড়ান। ভিক্ষুককে ১০ টাকার নোটও দেন। তারপর বলেন, ‘বাচ্চাটাকে একটু রাখুন, আমি টয়লেটে যাব।’ ভিক্ষুক নবজাতকটিকে রাখেন। কিন্তু ওই নারী আর ফিরে আসেননি। আধা ঘণ্টা পর নবজাতককে কোলে করে পাশের ফার্মেসিতে গিয়ে ঘটনা খুলে বলেন ভিক্ষুক। বর্তমানে ওই নবজাতক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আছে।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, নবজাতকটি মেয়ে। দুই দিন বয়সী নবজাতককে ফেলে রেখে যাওয়া হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। ফার্মেসির মালিক পৌর শহরের ভৈরবপুর উত্তরপাড়ার আশরাফুল ইসলাম ভিক্ষুকের কাছ থেকে নবজাতককে নিজের জিম্মায় রাখেন। পরে তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লুবনা ফারজানাকে জানান। ইউএনও নবজাতককে হাসপাতালে পাঠান।

আশরাফুল আলম বলেন, ‘নবজাতকের গায়ে পাতলা কাপড় ছিল। দেখে খুবই কষ্ট হচ্ছিল। দ্রুত গরম কাপড়ের ব্যবস্থা করি। আজ হাসপাতালে গিয়ে দুধ কিনে দিয়ে এসেছি। রাতেই থানায় এই বিষয়ে সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেছি।’

আজ শনিবার সকালে হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, নবজাতকটিকে নারী ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। আগ্রহ থেকে শয্যার এক রোগী নবজাতকের যত্ন করছেন। সার্বিক তত্ত্বাবধান করছেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বুলবুল আহমেদ।

বুলবুল আহমেদ বলেন, নবজাতক সুস্থ আছে। তবে হাসপাতালে নবজাতকটি বেশি দিন নিরাপদ নয়। নানা সংক্রমণে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়।

জানতে চাইলে ইউএনও লুবনা ফারজানা বলেন, শিশু আদালতের মাধ্যমে নবজাতকের স্থায়ী ব্যবস্থার প্রক্রিয়া চলছে।

সারাদেশ
২৫ জানুয়ারি ২০২০